Archives

শেষপাতার আহ্বান… ।। ঝড় উঠেছে বাউল বাতাস…

শেষপাতার আহ্বান…

 ঝড় উঠেছে বাউল বাতাস…

যৌবনে একবার খুব ঝড় ওঠে। টকটকে ফর্সা সুফিয়া কামাল মডেলের নানীমা পানসুপুরি মুখে বলিয়া চলেন ‘তোর যৌবন আচ্চে। এখন এ্যাক্না কন্যা লাগবে’। আমরা বুঝি নাই, জানি নাই কিছু। তবে কাঁচা রাস্তার ওপার থেকে বিরাট ময়রার বিল পার হইয়া একটা তুমুল ঝড় আসিয়াছিল— এই শরীরে। তখন কবিতা হইয়া ওঠে মন, পৌষসন্ধ্যার শরীরে লাগে করুণ কাঁপুনি। তাতে ছন্দ ওঠে। বিশ্বাস বপন হয়। কুঁড়িরা ভর করে মনের কোণে। কাঁচা শরীরে সেই বাউল বাতাস হানা দিলে তরঙ্গ উপচিয়া পড়ে। দূরে ঘনকালোমেঘ এক চিক্কন সরু বাদামি রেখায় মাঝ আকাশে ছোপ ছোপ বর্ণে বিকশিত হইয়া ওঠে। সেখানে কবিতা আসিয়াছিল থরো থরো নিথর নিমগ্নতায়। কামুক স্পন্দনে কাঁপিয়া। এই কী সেই ‘এ্যক্না কন্যা’! আমরা বুঝি নাই। লম্বা চুল উড়াইয়া মেঘগুচ্ছ সাতমহলার স্বপ্নপুরীর ক্ষুব্ধতায় মাতিয়া দেয়। গম্ভীর চুম্বনে তখন শ্বাস ওঠে। উড়ে আসে অনেক আনন্দ-অক্ষরমালা। বইয়ের পাতায়, খাতার কোণায়, ওড়ানো চিরকুটে চিঠির কবুতরডানা সুখসায়রে ভাইসা বেড়ায়। কাঁঠাল গাছের ফুল ওঠা মুচির গন্ধ তখন বাইরের বারান্দায় চঞ্চল-কনে-মুখ ধরা পড়ে। সে ফুড়–ৎ বর্ণে ইশারায় টানে। পালিয়া বেড়ায়; নিকানোপদধ্বনিতে ঝংকার ওঠায়। বেলোয়ারি বোল গমগমা হয়। মহলা সাজে নতুন সাজে পরিণীতা হয়। মুচির গায়ে গ্রীবাময় কাঠঠোকরা আরও গ্রীবাভঙ্গি করে— স্মরণের লজ্জার ছবি ওঠায়। সত্যিই সেদিন উত্তরা বাতাস বাউল হইয়া বলিয়াছিল : `তোমার মনে প্রচুর কামিনী আসিয়াছে। তুমি পশ্চিমা বাতাসের জন্য প্রার্থনা কর।‘ আহা! তারপর সেই ঈশ্বরপ্রলাপ কীরূপে অসীমে মিলিয়া গেল, বুকের কন্দরে গৃহকাতর রচনা করিল, জানি না। তবে ঝড় ওঠা সেই বাউল শরীর আর সাতমহলার রুদ্রবীণা এখনও ছাইয়া চলে গহনের কর্ণপাতে, নবকিশোদলের রাঙা শতদলে জীবনের নবপ্রদীপ জ্বলিয়া তোলে, খুব নবীনরূপে চিরকালের জন্য তা হাঁটিয়া বেড়ায়, এই তো ঝড় ওঠা বাউল বাতাস…

লিখুন… পরবর্তী সংখ্যায়

 ই-যোগাযোগ :shiqbal70@gmail.com অথবা saikatarefeen@gmail.com

ফোন : ০১৭১৯১৩২৬৫১ ॥ এ বিষয়ে লেখা পাঠানোর শেষ তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ খ্রি.