লুকোচুরি

লেখক : ইউসুফ মুহাম্মদ

কোনো এক বুদ্ধপূর্ণিমার রাতে টলটলে জ্যোছনায় আমাকে ভাসিয়ে এনেছে সমুদ্র-আঁচল

খোয়াজ খিজির যে জলে মিঠায় ক্ষুধা সাদা গাঙচিল গায় অথৈ, অথৈ তৃষ্ণার গজল।

মেঘ বৃষ্টি ও জলের তৃষ্ণা সকলে বুঝে না। যে বুঝেছিল সে অন্তরে অন্তরে দূরাশার গল্প।

শ্রাবণের ধারা সহ্য না হয় নগর বালিকার… কাক-ভেজা রোদের মতই ডাকে, অল্প অল্প

ভেজা চুলের সুগন্ধির আলাপন। ভিন দেশী সুখ দীর্ঘাঙ্গী আলোর রজ্জুতে ফেস্বুকে এঁকে

ও মেঘ্দল, বাতাসের ডানায় উড়িয়া আসমুদ্র ভালোবাসা কাকে দিলে, আমাকে আগুনে সেঁকে!

কেউ তো জানে না, জানার কথাও নয় সারাটা সময় আমি বৃষ্টি থেকে কতটা নিয়েছি ঋণ

সমুদ্র অশেষ ধন্য হতো, নেচে উঠত বিদ্যুতের রেখা, ঝর্ণা যদি জানত কীভাবে ফিরিল সুদিন।

শ্রাবণের ধারায় ভিজিয়া একাকি আমায় শাখায় ঠোঁটের আকর যত, লুকিয়ে রেখেছে যে-জন ভ্রমর

মুক্তির আকাশে ওড়ে সে হয়েছে বরফের প্রতিবেশী সুদূরের পরী… দেহের ভাষারা রয়েছে অমর।


Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /home/chinnofo/public_html/wp-includes/class-wp-comment-query.php on line 399
আলোচনা